আত্মবিলাপ!!

dailybarta71dailybarta71
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  07:30 PM, 03 June 2020

রসিদ আহমদ চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক সরুুত আলমের আবেগঘন স্ট্যাটাস

বিগত ২১মে’ ২২০২০তারিখ সন্ধ্যায় আরাকান সড়কের ফাঁসিয়া খালী এলাকায় ব্যাপক গুলাগুলির আওয়াজ শুনে আমার ছোট ভাই চকরিয়া উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সদস্য হেলাল উদ্দীন হেলালী তাৎক্ষণিক চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মহোদয়কে ঘটনাটি অবহিত করে। যা ছিল একজন সচেতন ও দেশপ্রেমিক নাগরিকের দায়িত্ব ও কর্তব্য।

কিন্ত এর পরিনাম! হীতেবিপরীত। সেই হেলাল ই কিনা হয়ে গেল দুইটি মামলার মিথ্যা আসামী। সাথে তার বিশ্বস্ত দুই সহযোদ্বা মোহাম্মদ ইউছুপ ও আরফাত।কিন্ত কেন? এই “কেন পোকাটা” মাথার ভিতর ঢোকে পড়ে। ঢোকেই মাথার ভিতরে আগে থেকে সযতনে লালিত “আওয়ামী পোকাটির”সাথে শুরু করে দেয় চরম কিলাকিলি। “আওয়ামী পোকার “কাছে “কেন পোকার “প্রশ্ন কেন…..কেন….কেন। কেন এই মিথ্যা আসামী? এর পেছনে কারো ইন্দন আছে কিনা, থাকলে সে কে বা কারা?

আর ইন্দন যদি না-ই থাকে,তা হলে আইন প্রয়োগকারী সংস্হা কিভাবেই বা কোন পদ্বতিতেই আসামী হিসাবে বাছাই করলেন মুজিব রণাঙ্গনের সূযোগ্য তিন সিপাহসালার কে! এতসব কেন’র উত্তরের প্রত্যাশায় শরণাপন্ন হলাম আমার পারিবারিক মুরব্বী, রাজনৈতিক অবিভাবক, আস্হা ও বিশ্বাসের ঠিকানা মাননীয় সাংসদ জাফর আলম বি,এ(সম্মান)এম,এ’র বরাবর।মহোদয় আপনার কাছে এর কোন সদোত্তর আছে কি?

অথবা আমাদের প্রতি কোন নির্দেশনা!আমি তাদের অবিভাবক হিসাবে আপনার সদয় নির্দেশনা ও শতভাগ সহযোগিতা প্রত্যশা করছি। মাননীয় সাংসদ, আপনার কাছে আমার এই প্রত্যাশা নিশ্চয় অমুলক বা অযৌক্তিক নয় বলেই আমার বদ্বমূল ধরনা।:বাকিটা আপনার এখতিয়ার।

এই ব্যাপারে আরো যাদের দৃষ্টিআকর্ষণ পূর্বক সহযোগিতা কামনা করছি……মাননীয় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, কক্সবাজার। জেলা আওয়ামীলীগ, কক্সবাজার। জেলা যুবলীগ, কক্সবাজার। জেলা ছাত্রলীগ, কক্সবাজার সহ সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীর।

কার্যকর ও যথোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহনে আরো যাদের সহযোগীতা চাই…….মান্যবর উপ-জেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদ্বয় চকরিয়া।সূযোগ্য পৌর চেয়ারম্যান, চকরিয়া সহ আওয়ামীলীগ ও সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মী ও সমর্থকদের।

মতবিনিময়ের মাধ্যমে যাদের কাছে কিছু প্রশ্ন রেখে গেলাম….. সর্বজনাব জাহেদুল ইসলাম লিটু, প্যানেল চয়ারম্যান, জেলা পরিষদ, কক্সবাজার।চেয়ারম্যান মহসিন বাবুল, চেয়ারম্যান আজীম, চেয়ারম্যান শওকত, পৌরসভা আওয়ামীলীগের সাঃ সম্পাদক আতিক উদ্দীন চৌঃ, সভাপতি-সম্পাদক উপ-জেলা যুবলীগ,চকরিয়া সহ আওয়ামী পরিবারের নিবেদিতপ্রাণ অগনিত নেতাকর্মী ও সমর্থকদের কাছে….আচ্ছা আপনারা কি হেলালকে চেনেন? সে কি রাজপথের রনাঙ্গণে আপনাদের সাথে ছিল না? সে কি ভুঁইপোড় অথবা হাইব্রীড়? সে কি কোন ডাকাত দলের সদস্য? সে কি দলীয় পদ-পদবী বিক্রী করে অবৈধ সম্পদ অর্জন করেছে? তার বিরুদ্বে কি দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কোন অভিযোগ আছে? এই রকম হাজরো যৌক্তিক প্রশ্ন রেখে গেলাম আপনাদের কাছে।

সূপ্রিয় লিডারগন আপনাদের কাছে জানতে বড্ড ইচ্ছে করে আপনারা তার এবং তার সহযোগীদের জন্য কি করলেন বা আপনাদের আদৌ কিছু করার আছে কি না।

প্রিয় নেতৃবৃন্দ আন্দোলন সংগ্রামে হেলালের ভূমিকার কথা কি আপনাদের এতটুকু ও মনে পড়ে না! বিপদগ্রস্হ নেতাকর্মীদের পাশে যদি আপনারা না দাঁড়ান ভবিষ্যত আওয়ামী রাজনীতির অবস্হা কেমন হতে পারে একবার ভেবে দখবেন কি! আমার অবিচল আস্হা, জাতির জনকের হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা এমন হতে পারেনা। দয়া করে বিষয়টা একটু ভেবে দেখবেন।

মিঃ তুহীন (এমপি তনয়) তোমার অনেক অনেক লিখা আমি প্রতিনিয়তই পড়ি। খুবই সৃজনশীল লিখা। অনেক সময় দেখি আমাদের আশে পাশে ঘটে যাওয়া অনেক বিষয় তোমার লিখা থেকেই আমাকে জানতে হয়। খুবই ভাল। পরবাসে বসেও এলাকার প্রতি তোমার ভালবাসা ঈর্ষণীয়। অনেক সময় আমি বিস্মিত হই বিদেশবিভূইয়ে থেকে এলাকার এত খুঁটিনাটি খবরাখবর তুমি কি ভাবে রাখ। এটা অবষ্যই একজন যোগ্য নাগরিকের যোগ্যতা, কর্তব্য ও ভালবাসার বহিঃপ্রকাশ।

প্রিয় তুমি নিশ্চয়ই হেলাল, ইউছুপ ও আরফাতের ব্যাপারটা জান। এই বিষয়ে আমি তোমার সুচিন্তিত মতামত প্রত্যাশা করছি।

পরিশেষে সকল সম্মানীত নেতৃবৃন্দের বরাবরে একটি কথা ই বলবো…
ভিক্ষা চাইনা বাবারা, কুত্তাটা সামলান।।
কৈফিয়ত….. হয়তো বা আপনারা সকলে জানেন আবেগ যেখানে প্রবল বিবেক সেখানে দূ্র্বল।সুতরাং আমার এ লিখায় অনিচ্ছাকৃত অনেক ত্রুুটি হতে পারে। তার জন্য সকলের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী।

মুজিবীয় শুভেচ্ছান্তে
সুরত আলম
(হেলাল উদ্দীন হেলালী’র বড় ভাই)।
ফাঁসিয়া খালী,চকরিয়া,কক্সবাজার।

আপনার মতামত লিখুন :