চকরিয়ায় বরইতলীর ডেইংগাকাটা গ্রামের যোগাযোগ ব্যবস্হা অবহেলিত;দেখার কেউ নেই

dailybarta71dailybarta71
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  06:23 PM, 26 June 2020

 আবদুল করিম বিটু

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে যেখানে গ্রামকে শহরে পরিণত করতে অক্লান্ত চেষ্টা করে যাচ্ছে, সেখানে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের ডেইংগাকাটা গ্রামের প্রধান সড়ক যা এলাকার ১নং ওয়ার্ডের চলাচলের একমাত্র পথ, এই সড়কের বেহাল দর্শা যা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন কে বিলিন করেছে।

সড়কে যান চলাচল তো দুরের কথা পায়েঁ হেঁটে চলাচল দূর্বিসহ হয়ে উঠেছে যা গ্রামের সকল পেশাজীবি মানুষের চরম ভোগান্তি অন্তহীন হয়ে পড়েছে। সরেজমিনে দেখা যায়,চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের শত বছরের অবহেলিত ডেইংগাকাটা গ্রাম,যে গ্রামে বসবাস ৫ হাজারের ও অধিক বিভিন্ন পেশাজীবি পরিবার,সাথে সংযুক্ত শান্তি বাজার সড়কটি ছড়া সংলগ্ন হওয়ায় উজান থেকে আসা বন্যা ও জোয়ারের পানিতে সড়কের অর্ধাংশ ভেঙ্গে ছড়ার দিকে তলিয়ে গেছে বহু বছর আগে।

এছাড়াও সড়কটি ৩ কিমি দৈঘ্যের প্রায় ১ কিমি রাস্তা পানির নিচে ডুবে থাকে বছরের অধিকাংশ সময়। বলতে গেলে সড়কের অস্তিত্ব নেই,রাস্তা বিলীন হয়ে ছড়ায় পরিনত হয়েছে। এলাকার মানুষ অনেক কষ্টে এই রাস্তা মাড়িয়ে চলাচল করে জীবিকার প্রয়োজনে,লন্ডভন্ড এই রাস্তা দিয়ে কোমলপ্রাণ শিক্ষার্থীরা বরইতলী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার অন্বেষণে যাতায়াত করে।অত্র ইউপির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কটি অকেজো হয়ে পড়েছে।সড়কটি ভাঙ্গণে থ্রী-হুইলার সহ ছোট বড় যান চলা বন্ধ অনেক আগে থেকে,বেড়েছে জন-র্দূভোগ অন্তহীন ভাবে।

এই গ্রামে অনেক শিক্ষিত ও সচেতন মানুষ থাকলেও এই রাস্তা নিয়ে তাদের কোন মাথা ব্যাথা নেই,যদিও তারা প্রতি নিয়ত পায়েঁ হেটেঁ পানি ও কাদাঁ মাড়িয়ে চলাচল করছে। এই পরিস্থিতিতে বসে না থেকে এলাকার সাহসী ও প্রতিবাদী যুবক রাফি এলাকার লোকজনকে সচেতনতার পাশাপাশি প্রতিবাদ করে দাবী আদায়ে জন্য বিভিন্ন মহলে যোগাযোগ করছে। এই বিষয়ে রাফি বলেন-বিভিন্ন কারণে ছড়া খালটি বেশী গভীর হওয়ায় চলিত বর্ষার শুরুর কয়েক দিনের বৃষ্টিতে সৃষ্টি হওয়া বন্যার পানিতে ছড়া সংলগ্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি করুণ অবস্হা সৃষ্টি হয়।

এতে করে প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার পরিবারে চরম জন-র্দূভোগ নেমে এসেছে,জানি না বর্ষা শেষ হতে না হতে এইখানে যে একটা সড়ক ছিল তার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া মুশকিল হয়ে পড়বে।সড়কটি রক্ষার জন্য আমরা এলাকার যুকরা একত্রিত হয়ে চকরিয়া-পেকুয়ার এমপি,উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে স্মারক লিপির মাধ্যমে জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করব অতি শীঘ্রই।

এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান জালাল আহমদ শিকদার বলেন,বর্ষার শুরুতে ডেইংগাকাটার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি করুণ দৃশ্যপট আমি এলজিডি,উপজেলা চেয়ারম্যান ও এমপি সাহেবকে অবগত করেছি,অতপর এমপি সাহেবকে এনে সরেজমিনে দেখিয়েছি,তিনি আশ্বাস দিয়েছেন-সরকারী বাজেট পেলে সড়কটি রক্ষা ও পূণ নির্মাণের কাজ করবেন,আপতত আমি পরিষদের মাধ্যমে যান ও মানুষ চলাচলের জন্য উপযোগি করে তুলার চেষ্টা চালাচ্ছি অতিসত্বর।

আপনার মতামত লিখুন :