• মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন
Headline
চকরিয়ায় প্রথম ও সর্ববৃহৎ নারী উদ্যোক্তা সংগঠনের বর্ষপূর্তি পালিত চকরিয়ায় পালমোনারি রিহ্যাবিলিটেশন ওয়ার্কশপ ও সেমিনার কোনাখালী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রত্যাশী সাবেক ছাত্র নেতা জাফর সিদ্দিকী চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে দুই সহোদরের পরাজয় কাউন্সিলর আঞ্জুমান আরা কে অভিনন্দন জানালেন যুবলীগ নেতা সুমন কাউন্সিলর নুরুল আমিন কে অভিনন্দন জানালেন যুবলীগ নেতা সুমন শান্তিপূর্ণ নির্বাচনে আলমগীর চৌধুরী পুনরায় মেয়র নির্বাচিত রাত পোহালেই চকরিয়া পৌরসভায় ইভিএমে ভোট গ্রহণ,প্রশাসনের প্রস্তুতি সম্পন্ন চকরিয়ায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জোর পূর্বক বসতভিটা দখল চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কার প্রসঙ্গে জাহেদুল ইসলাম লিটু

জাগো যুবক,দেশের ও নিজের কল্যাণে

মনসুর মহসিন / ৮৫ Time View
Update : বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১

বদরুল ইসলাম বাদল

মহামারী করোনা সংক্রমণ এবং মৃত্যুহার নিম্নমুখী। কিন্তু শংকামুক্ত নয়। কোভিট-19 এর একক সাম্রাজ্যবাদী তান্ডবে পুরো বিশ্ব তটস্থ। ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে বিশ্ব অর্থনীতি।তাই করোনাভাইরাস সংকট অবসানের পথে অর্থনৈতিক মন্দা থেকে বিশ্বকে উদ্ধার করার বিষয়ে বিশেষভাবে নজর দেওয়া দরকার বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞ মহল। আর ঐতিহাসিক বাস্তবতায় এই সংকট মোকাবিলায় যুবসমাজের দায়িত্বই সর্বাধিক।

      করোনা ভাইরাসে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে  বিশ্বের রাজনীতি, অর্থনীতি ও সামাজিক খাত ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ।  দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পৃথিবী  এমন সমস্যার সম্মুখীন হয়নি কখনো। মহামারীতে দীর্ঘ সময় লকডাউন-শাটডাউনের কারণে অর্থনীতির গতি স্থবির। স্কুল কলেজ বন্ধ থাকার ফলে পড়ুয়াদের মাঝে মানষিক অবসাদ, যোগাযোগ বন্ধ তথা বেশি সময় ঘরবন্দী থাকায় মানুষের  মাঝে  অস্থিরতা, নেতিবাচক মনোভাবের বিস্তৃতি। তাই করোনা পরবর্তী ডিজিটাল পৃথিবীর সাথে তাল মিলিয়ে সামনে এগিয়ে নেওয়া বড়  চ্যালেঞ্জিং বিষয়। এই সমস্যা মোকাবিলা করার  প্রত্যয়ে সবাইকে  নিজ নিজ অবস্থানে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখা ছাড়া বিকল্প নাই। হতাশা নয়, অবসাদমুক্ত হয়ে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে  দুঃসময়, দুর্যোগের পরে ও ভাল কিছু আশা করা যায়।মার্কিন মানবাধিকার কর্মী মার্টিন লুথার কিং বলেন, "যদি তোমার সামনে হতাশার কালো পাহাড় এসে দাঁড়ায়, তুমি তাতে আশার সুরঙ্গ কাটতে শুরু কর"।


 " জাগো যুব জাগো, জীবনের কল্যাণে" মন্ত্র ধারণ করে  চকরিয়া  যুব পরিষদের সভাপতি অর্থনীতি বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারী যুবক তানজিনুল ইসলাম চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ প্রাথমিক শাখার (বেসরকারি) একজন শিক্ষক। শিক্ষকতার পাশাপাশি  যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সহায়তায় চকরিয়া  যুব পরিষদের মাধ্যমে স্থানীয় বেকার যুবকদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ দিয়ে স্বাবলম্বী করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রশিক্ষণ নেয়া অনেক বেকার যুবক সরকারি বিধিমালা অনুযায়ী  সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ নিয়ে  বাগান, হাঁস-মুরগীর খামার , গরুর খামার করে স্বাবলম্বী হচ্ছে। তিনি নিজেও পেঁপে বাগান করে লাভবান হন। শুধু তাই নয়, করোনাকালীন সময়ে "টি স্টোর" প্রতিষ্ঠান গড়ে সিলেটের চা পাতা সহ বিভিন্ন নাস্তা তৈরীর সমস্ত সামগ্রী নিয়ে  ব্যবসা শুরু করে তরুণ উদ্যোক্তাদের উৎসাহীত করছেন। তিনি বলেন " যারা প্রশিক্ষণ নিয়ে উদ্যোক্তা হিসেবে বেকারত্বদূরীকরণে এগিয়ে আসতে চাইবে , চকরিয়া যুব পরিষদ  তাদের  সহযোগিতা করবে।

    যুবকরা সমাজের সচেতন নাগরিক। যৌবনই মানব জীবনের শ্রেষ্ঠ সময়। যে কোন ইতিবাচক চিন্তায় সৃষ্টিশীল কাজ দিয়ে দেশের সমৃদ্ধিতে অবদান রাখে যুব সমাজ। যে কোন জাতীয় দুর্যোগে তরুণ প্রজন্ম সর্বাগ্রে এগিয়ে আসে।বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ত্রিশ শতাংশই তরুণ সমাজ। পরিবর্তনশীল পৃথিবীতে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করার পথে স্বনির্ভর তরুণ প্রজন্ম অগ্রগণ্য ভূমিকা রাখতে পারে। তাই চাকরির পিছনে না ছুটে লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং কর্মসূচির মাধ্যমে প্রশিক্ষণ নিয়ে প্রয়োজনে সহজশর্তে ব্যাংক লোন নিয়ে স্বাবলম্বী, হওয়া যায়। বিভিন্ন ধরনের প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে কিছু তরুণের কর্মস্থল সৃষ্টি করা যায়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন,"তারুণ্যের শক্তি বাংলাদেশের অগ্রগতি।তরুণদের মধ্যে একটা কিছু তৈরি করার যে সুপ্ত শক্তি রয়েছে, সে কর্মদক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে দেশ গড়ার পথে অবদান রাখতে পারে "। উদ্দীপ্ত যুবক সৃষ্টির আনন্দে নিজেকে খুঁজে ফিরে। ত্যাগের মহিমায় উদ্বেলিত হয়ে মানবতার জয়গান গায়।

  ইতিহাস আমাদের অনুপ্রেরণার উজ্জ্বীবিত  সাক্ষী। মাতৃভাষার দাবির মিছিলে রাজপথে রক্ত ঝরানো, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে সর্বোপরি স্বৈরাচার সাম্প্রদায়িক অপশক্তি বিরোধী আন্দোলনে বাংলাদেশের যুব সমাজের ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। পাশাপাশি করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে যুব সমাজের অদম্য সাহস প্রসংশার দাবী রাখে। নিজের জীবন তুচ্ছ ভেবে মানুষের পাশে দাঁড়ানো, মহামারী জয়ে সচেতনতা সৃষ্টি, করোনায় মৃত্যুতে লাশ দাফন ইত্যাদিতে যুবকদের অবদান অনস্বীকার্য। 

আজ বিধ্বস্ত পৃথিবী। বিশ্বের সর্বক্ষেত্রে অদৃশ্য শত্রুর আক্রমণে মানব সভ্যতা ক্ষতবিক্ষত। তাই প্রয়োজন সভ্যতা,সমাজ এবং জাতিকে পুনঃগঠনে যুবাদের এগিয়ে আসা । কাজের মাধ্যমে নিজেদের স্বাবলম্বী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সরকার যুব সমাজের জন্য বিভিন্ন ধরনের যুব উন্নয়ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন। করোনা পরবর্তী নতুন পৃথিবী গড়ার পথে অর্থনৈতিক মুক্তিকেও একটি যুদ্ধ বলা যায়। বেকারত্বের বিরুদ্ধে দারিদ্র্যমুক্ত জীবন বিনির্মাণে আত্মবিশ্বাস এবং আত্মমর্যাদার লড়াই। চকরিয়া যুব পরিষদের সাথে যুক্ত সকল যুবক এবং তানজিনু ইসলামকে উদাহরণ হিসেবে দেখতে পারি। যৌবন হল স্বপ্নবিভুর সময়। সুন্দর ও সুস্থ স্বপ্ন যুবকদের ভবিষ্যৎ রাঙ্গাতে পারে। সেই স্বপ্নচারি যুবকদের স্বপ্ন দেখায় চকরিয়া যুব পরিষদের মত সংগঠন। আর হাতে কলমে কাজ করে অনুপ্রেরণা যোগায় তানজিনুল ইসলামের মত যুবকরা। তাই বলা যায় “স্বপ্ন দেখতে জানলে জীবনের কাঁটাগুলো ও ধরা দেয় গোলাপ হয়ে। “

বাংলাদেশ সহ বিশ্ব বিরাট এক অর্থনৈতিক মন্দার দিকে যাচ্ছে। আর দেশের উন্নয়নের দিকে ধাবমান অর্থনৈতিক চাকা অব্যাহত রাখতে তরুণ সমাজই ভরসা।তাই দরকার তরুণদের পাশে রাষ্ট্রীয় সহযোগিতা এবং যুব উন্নয়ন ভিত্তিক পরিকল্পনা।

লেখক –বদরুল ইসলাম বাদল
কলামিস্ট, নব্বই দশকের সাবেক ছাত্র নেতা
badrulislam2027@gmail.com


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category