• বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ১০:১৮ অপরাহ্ন
Headline
চকরিয়ায় নলবিলা বন বিটের বাগান থেকে নিজের বাগান দাবি করে বিপুল গাছ কর্তন শীতার্ত ছিন্নমূল মানুষ এবং অবহেলিত কক্সবাজারের দরিদ্র জনগণ —– সাংবাদিককে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেলেন শাহীন সরওয়ার! ডুলাহাজারায় ইউপি মেম্বারের নেতৃত্বে পরিষদে হামলা, ইউপি সচিব, গ্রামপুলিশসহ আহত ৫ চকরিয়ায় দিনদুপুরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, লুটপাট, আহত-২ চকরিয়া প্রবাসী কল্যাণ একতা সমবায় সমিতির প্রথম বর্ষপূর্তি চকরিয়া ফাসিয়াখালীতে ডাকাতির প্রস্তুতি কালে ৩ জন আটক চকরিয়া বদরখালীতে কয়লাবিদ্যুৎ প্রকল্পের স্টাফ কোয়ার্টারে হামলা, মালামাল লুট ঢেমুশিয়া জিন্নাত আলী চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন বনবিভাগের ৫ একর সংরক্ষিত বনভূমি জবরদখল মুক্ত

চকরিয়ায় বন্যহাতি হত্যা; মামলার আসামিরা ধরা ছোঁয়ার বাইরে

নির্বাহী সম্পাদক / ৮৭ Time View
Update : সোমবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২১

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধিঃ
 কক্সবাজারের চকরিয়ায় সাম্প্রতিক সময়ে খাদ্যের সন্ধানে বন্য হাতির দল লোকালয়ে চলে এসে ধা ক্ষেতে নামতে গেলে একটি বন্য হাতিকে বৈদ্যুতিক ফাঁদে ফেলে হত্যা করা হয়। বন্য হাতি হত্যার এ অপকর্ম চাপা দিতে হাতিটির দেহ মাটিতে পুঁতে ফেলা হয়। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট বনবিভাগ বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ এর তফসিল বিধি ০১ লংঘনের অপরাধে আদালতে মামলা দায়ের করেছে। বন্যহাতি হত্যা মামলা এক মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও মূল আসামিরা এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াড়ালেও  পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করছে না বলে অভিযোগ তুলছেন এলাকা বাসী।হারবাং ইউনিয়নের চূড়াফুলা ফুইজার ঝিরি নামক এলাকায় এই হাতি হত্যার ঘটনা ঘটে। হাতি হত্যার ঘটনায় সংশ্লিষ্ট বনবিভাগ বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ এর তফসিল ০১ বিধি লংঘন অপরাধে ৫ জনকে আসামি করে ১৪ নভেম্বর চকরিয়া উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে টৈটং বনবিট কর্মকর্তা জাবেদুল আব্বাছ চৌধুরী বাদী হয়ে একটি হাতি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
 আসামিরা হলেন, উপজেলার হারবাং মোছন সিকদার পাড়ার মৃত জব্বার আলীর পুত্র আহমদ হোছন ওরফে লুলা মিয়া, একই ইউনিয়নের মসজিদের মুড়া এলাকার মৃত শামসুল আলমের পুত্র জানে আলম প্রকাশ জানু, ভায়াকাটা এলাকার নন্না মিয়ার পুত্র জসিম উদ্দিন, মসজিদের মুড়া এলাকার মীর কাসেম আলীর পুত্র হারুন ও গোদার পাড়া এলাকার আবদুস সালামের পুত্র মো: জমির উদ্দিন।
স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, হারবাং সংরক্ষিত বনের ভেতর সমতল জমিতে ধান চাষ করা হয়েছে। সেই ধান রক্ষায় চারদিকে গাছের খুঁটি পুঁতে তার দিয়ে ঘিরে দেওয়া হয়েছে। দৃশ্যত ওই তারে বিদ্যুতের সংযোগ দেওয়ার পরই তাতে জড়িয়ে মারা পড়ে বন্য হাতিটি। মূলত শীত মৌসুমের শুরুতে বন্য হাতির বিচরণ বাড়ে ওই এলাকায়। খাবারের সন্ধানে এসে প্রায়ই ধানক্ষেতসহ ফসলি জমি নষ্ট করছিল হাতির দল। তাই হাতির উপদ্রব থেকে ধানক্ষেত রক্ষায় একটি দখলবাজ চক্র জেনারেটর দিয়ে বৈদ্যুতিক তারের ফাঁদ বসানো হয়। ওই বৈদ্যুতিক ফাঁদে পড়ে হাতি হত্যার ঘটনাটি ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানায়।
সচেতন মহলের অভিযোগ – বন্যহাতি হত্যায় দায়েরকৃত মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি মো: জমির উদ্দিনসহ অপরাপর আসামিরা প্রকাশ্যে এলাকায় ঘুরা-ফেরা করলেও পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করছেনা। যারা ধানক্ষেত রক্ষায় জিও তারে জেনারেটরের বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে ফাঁদ পেতে হাতিকে হত্যা করেছে তারা দেশ ও জাতির শত্রু।
 চট্রগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের আওতাধীন বারবাকিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, একটি প্রভাবশালী দখলবাজ চক্র সংরক্ষিত বনভূমির জমি দখলে নিয়ে ধান চাষ করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। ওই চক্রটি বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতে মূলত হাতি হত্যার ঘটনাটি করেছে। ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আসামিগণ এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের ধরতে বেগ পেতে হচ্ছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।  

চকরিয়া থানার ওসি মুহাম্মদ ওসমান গনি বন্যহাতি হত্যার ঘটনায় আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে জোর তৎপরতা চালানো হচ্ছে উল্লেখ করে  তিনি বলেন,  ইতোমধ্যে আসামিদের ধরতে কয়েকবার অভিযান চালানো হয়েছে, আসামিদের অবস্থান চিহ্নিত করে দ্রুত সময়ে তাদের গ্রেপ্তারের জন্য প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে । ##


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category