• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:১১ পূর্বাহ্ন

সাহারবিলের দফাদার ওসমানের দাপটে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ

Reporter Name / ১১৮ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর, ২০২১

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়নের বিতর্কিত দফাদার ওসমান গণি(পুতিয়া) এর ক্ষমতার দাপটে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ! তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয় গ্রামবাসী।
এলাকাবাসী জানান, পুতিয়ার বাবা জাফর আলম ছিলেন মসজিদের মোয়াজ্জেম। বিদ্যালয়ের গন্ডি পেরোতে না পারলেও এলাকায় অনেকেই দফাদার ওসমানকে আতঙ্ক হিসেবে চেনে। ইভটিজিং,মারামারি, নিরহ মানুষকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো, গ্রামের সকল গাছ থেকে ফলমূল, সুপারী,ডাব,নারকেল চুরি করাসহ প্রায় সব ধরণের অপরাধ কর্মকান্ডের সাথে জড়িত এই দফাদার ওসমান। ওসমান ও তার স্ত্রী সন্তানদের অত্যাচার ও নির্যাতনের কাছে অসহায় কাজলীবাপের চরবাসী।সরেজমিনে এই প্রতিবেদকের অনুসন্ধানে উঠে এসেছে দফাদার উসমানের অপরাধ জগতের চাঞ্চল্যকর তথ্য। ওসমান কিভাবে মূর্তিমান আতঙ্ক হিসেবে প্রতিষ্টিত হয়েছে।

সাহারবিল ১নং ওয়ার্ডে এলাকাবাসীরা জানায়, তার বিরুদ্ধে অসংখ্য অভিযোগ দেওয়ার পরও চেয়ারম্যান কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় এলাকাবাসীরা তাকে গ্রাম ছাড়া করে। বর্তমানে দফাদার তার শশুড়বাড়ী এলাকা রামপুর কাজলীবাপের চরে বসবাস করে।
রামপুর কাজলীবাপের পাড়া এলাকাবাসীরা আতঙ্কে আছে তার ভয়ে কখন কার ভিটা দখল করে,কাকে মারধর করে এই আশংকায়।

গ্রাম পুলিশ(দফাদার) এর প্রভাব খাটিয়ে নিরহ মানুষকে মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে অল্প সময়ে বেপরোয়া হয়ে ওঠেন তিনি। নিরহ লোককে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেই হাজত কাটে এ দফাদার।

পঙ্গু না হয়ে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে প্রতিমাসে প্রতিবন্দী ভাতা তুলে নিচ্ছে অনায়াসে।পঙ্গু হওয়ার অভিনয় করে তার হাতে থাকা চলাচলে ব্যবহৃত স্টিক দিয়ে মানুষকে মারধর করে।

তার বিরুদ্ধে চকরিয়া থানা,চিফ জুডিশিয়িল ম্যাজিট্রেট আদালত ও চকরিয়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে রয়েছে বেশ কয়েকটি মামলা। অজ্ঞাত কারনে তিনি সবসময়ই থাকেন ধরাছোঁয়ার বাইরে।

নিরীহ প্রতিবেশী রাহেলা বেগম নামে এক নিরীহ মহিলার জায়গা থেকে জোরপূর্বক সুপারী লুটসহ তার বাড়ীর ছেলের বৌদের সাথে অশালীন ও ইভটিজিং করে আসছে বলে অভিযোগ উঠছে। স্থানীয় চেয়ারম্যানের আশকারা ও গ্রাম পুলিশের প্রভাব খাটিয়ে সবকিছুর আড়ালে থেকে যায় দফাদার ওসমান। পার্শবর্তী বাড়ীর গৃহবধূদের সাথে ইভটিজিং ও তার ছোট ছেলে ছালেম বিন নুরকে মারধরের ঘটনায় তার বিরুদ্ধে চকরিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়নের রামপুর কাজলীবাপের পাড়া গ্রামের দফাদার ওসমানের সন্ত্রাসী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করে থানায় মামলা হলে ওই মামলা উঠিয়ে নেওয়ার জন্য মা ও ছেলে ছালেম বিন নুরকে মেরে ফেলার জন্য বারবার হুমকি দেয় বলে জানান ভুক্তভোগী ছালেম নুর। মামলায় আদালত থেকে আসামীর প্রতি সমন জারী হওয়ায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আসামী দফাদার ওসমান মামলার বাদী সাংবাদিক ছালেম বিন নুরের উপর পুনরায় হামলা চালায়। এ ঘটনায় গত ৩০জুন চকরিয়া নির্বাহী আদালত বরাবর মামলা নং এমআর ১১৮/২১ অভিযোগ দায়ের করে। পরে এই ঘটনার সরেজমিনে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় চকরিয়া সহকারী কমিশনার(ভূমি) রাহাত উজজামানকে।
প্রতিবেশী সাবেকুন্নাহার জানান,সাংবাদিক ছালেম বিন নুরের পক্ষে সাক্ষী দেওয়ায় দফায় দফায় বাড়ীতে হামলা চালিয়ে বাড়ি ভাংচুর করে দফাদার ওসমান পরিবার। তার স্ত্রী মেয়েদেরকে শ্লীলতাহানীর মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে আসছে তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদকারীদের।
আদালতের মামলাকে তোয়াক্কা না করে গত ১৯ অক্টোবর দফাদার ওসমানের নির্দেশনায় তার শ্যালক জমির উদ্দীন ছেলে মোঃ সায়েমকে দিয়ে বাড়ীর বধূদের ছবি তোলে,অশ্লীল গালিগালাজ করে ও বাড়ীর সুপারী গাছ থেকে সুপারী লুট করে। এ ঘটনা তাৎক্ষণিক চকরিয়া থানার এএসআই কামাল হোসেন ও স্থানীয় মেম্বারকে অবহিত করা হয়।
ওসমান দফাদারের এহেন কর্মকান্ড থেকে রেহায় পেতে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ সুদৃষ্টি কামনা করেন ভুক্তভোগী পরিবার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category